৪ঠা অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ১৯শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৭ই রবিউল আউয়াল, ১৪৪৪ হিজরি
www.motherlandnewsbd.com

রাজশাহী তানোরে অবৈধভাবে মটরে সেচ বাণিজ্য!


প্রকাশিত: মাহবুব আলম জুয়েল (সম্পাদক)

আলিফ হোসেন,(রাজশাহী প্রতিনিধি): রাজশাহী পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি তানোর জোনের একশ্রেণীর কর্মকর্তার বিরুদ্ধে অর্থ বাণিজ্যর অভিযোগ উঠেছে। স্থানীয়রা জানান, এসব কর্মকর্তাকে আর্থিক সুবিধার বিনিময়ে গ্রামের বিত্তশীলরা বৈধ বৈদ্যুতিক মটরে (খাবার পানি) অবৈধ সেচ বাণিজ্য করছে।

এদিকে মটর মালিকগণ অবৈধ লেনদেনের টাকা উসুল করতে কৃষকের কাছে থেকে বিঘা প্রতি (৩ হাজার থেকে সাড়ে ৪ হাজার টাকা) গলাকাটা সেচচার্জ আদায় করছে। আবার এসব অবৈধ মটরের কারণে এলাকার অধিকাংশ গভীর নলকুপ অকেজো হয়ে পড়েছে। অথচ পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির কর্মকর্তারা অজ্ঞাত কারণে বিষয়টি দেখেও না দেখার অভিনয়ে এড়িয়ে চলেছে এবং মিটার প্রতি ৩০০ ইউনিটের বেশি বিদ্যুৎ ব্যবহার হলে বিলের পরিশোধের পাশপাশি অতিরিক্ত ১৫০০ টাকা জরিমানা আদায় করে অবৈধ সেচ বাণিজ্যর বৈধতা দিচ্ছেন।

ফলে এলাকায় প্রতিনিয়ত প্রতিযোগীতামূলক ভাবে খাবার পানির জন্য মটর স্থাপন সেচ বাণিজ্যর প্রসার ঘটছে। আর এতে বিএমডিএ’র গভীর নলকুপ সেচ প্রকল্প হুমকির মূখে পড়েছে। আবার অধিকাংশক্ষেত্রে সেচ নিয়ে গভীর নলকুপ অপারেটর ও মটর মালিকদের প্রতিনিয়ত বাকবিতন্ডতা ও হামলা-মামলার ঘটনা ঘটছে বলে একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, উপজেলা সেচ কমিটির অনুমোদন ব্যতিত ও গভীর নলকুপের কমান্ড এরিয়া (১৪০০) মিটারের মধ্যে কোনো অবস্থানেই বৈদ্যুতিক মটর স্থাপন করা যাবে না। কিন্তু খাবার পানির জন্য বাসা-বাড়িতে সেচ মটর (আবাশিক) স্থাপন করা যাবে তবে সেই মটর থেকে কোনো অবস্থাতেই সেচ দেয়া যাবে না। অথচ তানোরের মুন্ডুমালা পৌরসভার টকটকিয়া গ্রামের মৃত ছিদ্দিক আলীর পুত্র বিএনপি মতাদর্শী আলাউদ্দিন আলী থাবার পানির জন্য বাড়িতে বৈদ্যুতিক সেচ মটর স্থাপন করে অবৈধভাবে সেচ বাণিজ্য করছে।

কৃষকরা জানায়, অবৈভাবে তিনি প্রায় ৩০ বিঘা জমিতে সেচ দিচ্ছেন এবং বিঘা প্রতি সাড়ে ৩ খেকে ৪ হাজার টাকা করে সেচ চার্জ আদায় করছেন। পল্লী বিদ্যুৎ সমিতিকে জানানোর পরেও তারা কোনো ব্যবস্থা নিচ্ছেন না।

এব্যাপারে জানতে চাইলে মটর মালিক আলাউদ্দিন আলী বলেন, তিনি জমিতে সেচ দিচ্ছেন তার জন্য তো বিদ্যুৎ বিল পরিশোধ করছেন এখানে বৈধ-অবৈধ বলে কিছু নাই। তিনি আরো বলেন, পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি তার মটরের সেচ দেয়ার বিষয়টি জানেন তাদের মৌখিক অনুমতি রয়েছে।

এব্যাপারে পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি তানোর জোনের সহকারী প্রকৌশলী (এজিএম) সানোয়ার হোসেন এসব অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, আবাশিক মটর সংযোগ থেকে কোনো অবস্থাতেই সেচ দেয়া যাবে না। তিনি বলেন, এবিষয়ে বিস্তারিত খোঁজখবর নিয়ে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে#

Share Button


     এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ