৩রা অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ১৮ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ৬ই রবিউল আউয়াল, ১৪৪৪ হিজরি
www.motherlandnewsbd.com

চট্টগ্রাম-৮ আসনের নির্বাচন নিয়ে গ্যাঁড়াকলে বিএনপি, ত্রিমুখী চাপের শঙ্কা!

মাদারল্যান্ড নিউজ ডেস্ক: ২০২০ সালের ১৯ জানুয়ারি চট্টগ্রাম-৮ আসনের উপ-নির্বাচনের দিন ধার্য করেছে নির্বাচন কমিশন। চট্টগ্রাম শহরের বোয়ালখালী, চান্দগাঁও, পাঁচলাইশ ও বায়েজিদের আংশিক এলাকা নিয়ে গঠিত এই আসনের উপনির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবে বিএনপি। জানা গেছে, প্রার্থী চূড়ান্ত করতে গিয়ে কিছুটা বিপাকে পড়তে হয়েছে দলটির হাইকমান্ডকে। বঞ্চিত ও পরীক্ষিত আব্দুল্লাহ আল নোমানকে উপযুক্ত মনে করলেও এম মোরশেদ খানের প্রত্যাবর্তন ও আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী ও স্থানীয় বিএনপি নেতা আবু সুফিয়ানের গোপন লবিংয়ে প্রার্থী চূড়ান্ত করতে মির্জা ফখরুলদের নাকানি-চুবানি খেতে হচ্ছে বলেও জানা গেছে।
বিএনপির একাধিক সিনিয়র নেতার সাথে কথা বলে চট্টগ্রাম-৮ আসনের প্রার্থী নির্বাচন নিয়ে বিএনপির অভ্যন্তরীণ সমস্যার বিষয়ে জানা গেছে।
এ বিষয়ে পরিচয় গোপন রাখার শর্তে বিএনপির স্থায়ী কমিটির একজন প্রভাবশালী নেতা বলেন, জাতীয় সংসদে নিজেদের প্রতিনিধির সংখ্যা বাড়াতে ইতিবাচক বিএনপির শীর্ষ নেতারা। তবে চট্টগ্রাম-৮ আসনের উপ-নির্বাচন নিয়ে বেশ বেকায়দায় পড়েছে দলটি। এখানে অন্তত ৩ জন প্রথম সারির নেতা মনোনয়ন বাগিয়ে নেয়ার জন্য লন্ডন ও নয়াপল্টনে জোর লবিং শুরু করেছেন। শুনেছি, হাইকমান্ডের গুড বুকে নোমানের নাম আছে। নোমানের মনোনয়ন নিশ্চিত জেনেও আমীর খসরু, মোরশেদ খানও দৌড়-ঝাপ করছেন। আর খসরুর সেকেন্ড ম্যান খ্যাত আবু সুফিয়ানও যুক্ত হয়েছেন মনোনয়ন প্রতিযোগিতায়।
তিনি আরো বলেন, চট্টগ্রাম অঞ্চলে বিএনপি এবার একটি আসনও পায়নি। তাই বুঝে-শুনে জয় নিশ্চিত করতে নোমানকে মনোনয়ন দিতে অনেক সিনিয়র নেতাই তারেক রহমানকে অনুরোধ করেছেন। অন্যদিকে দলের ফরেন কমিটির সদস্য হওয়ায় আন্তর্জাতিক পর্যায় থেকে তারেককে বুঝিয়ে মনোনয়ন আদায় করতে জোর লবিং চালাচ্ছেন আমীর খসরু। তবে মোরশেদ খানও গোপনে যোগাযোগ করছেন বলে জানা গেছে। যদি সফল না হন তবে তার অনুসারী সুফিয়ানকে এই আসনে মনোনয়ন দিয়ে ছায়া এমপি হতে চান খসরু। সব মিলিয়ে দেশ ও আন্তর্জাতিক চাপে এই আসনের মনোনয়ন চূড়ান্ত করতে নাকানি-চুবানি খেতে হচ্ছে বিএনপিকে।
এদিকে বিষয়টি ভিন্নভাবে ব্যাখ্যা করে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেন, চট্টগ্রাম আসনে প্রার্থী বাছাইয়ে হাইকমান্ডকে একটু কৌশলী হতে হবে। মনোনয়নের রেষারেষিতে যেন বিএনপিই বিএনপির শত্রুতে পরিণত না হয়- সেটি খেয়াল রাখতে হবে।
তবে ব্যক্তিগত পছন্দের জায়গা থেকে গয়েশ্বর চন্দ্র রায় খসরুকেই এই আসনের জন্য উপযুক্ত মনে করেন বলে জানিয়েছেন।

Share Button


     এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ